এক্সফোলিয়েশনে চাই সতর্কতা

অ্যাকনে আক্রান্ত ত্বকের এক্সফোলিয়েশন জরুরি। তবে চাই সতর্কতা। নয়তো হতে পারে হিতে বিপরীত। অনেক ক্ষেত্রে এ ধরনের ত্বকের যত্নে কেমিক্যাল এক্সফোলিয়েন্ট বেশি কার্যকর।

কারণ, ফিজিক্যাল এক্সফোলিয়েন্ট বেশ রুক্ষ হয়ে থাকে, যা ত্বকের অবস্থা আরো নাজুক করে তোলে। এক্সফোলিয়েন্ট করার সময় একবার ব্যবহার্য অনুষঙ্গ ব্যবহার করা উচিত। যেমন ব্রাশ বা পুনর্ব্যবহারের উপযোগী যন্ত্রের বদলে একবারই ব্যবহার করা যায় এমন এক্সফোলিয়েটিং প্যাডগুলো ব্যবহৃত হতে পারে সপ্তাহে দুবার। সালফারযুক্ত মাস্ক অ্যাকনে সারিয়ে ত্বকের দাগছোপ কমাতে সাহায্য করবে। চারকোল মৃতকোষ সারিয়ে ত্বককে রাখবে ব্রণমুক্ত। ক্লে মাস্ক গভীর থেকে দূষণ আর ব্যাকটেরিয়া দূর করে ত্বক রাখবে পরিষ্কার। এএইচএ এবং বিএইচএ-যুক্ত মাস্কে এক্সফোলিয়েটিং উপাদান থাকে, যা ব্রণযুক্ত ত্বকের যত্নে দারুণ।

মাসে একবার ভালো কোনো ত্বক বিশেষজ্ঞ কিংবা ডার্মাটোলজিস্টের কাছে গিয়ে জরুরি পরীক্ষা-নিরীক্ষা সেরে নেয়া যেতে পারে। পরামর্শ অনুযায়ী চিকিৎসা আর ওষুধ ব্রণ কমাতে সহায়ক হবে। অ্যান্টি-অ্যাকনে ট্রিটমেন্টও করে নেয়া যেতে পারে ভালো কোনো পারলার থেকে।

অ্যাকনে আক্রান্ত ত্বকের চর্চায় যারা রাসায়নিক বর্জিত পদ্ধতি অনুসরণ করতে চান, তাদের জন্যও রয়েছে সহজ সমাধান।

এক্সফোলিয়েটর: ওটসের সঙ্গে মধু আর দই মিশিয়ে ব্যবহার করা যেতে পারে ব্রণযুক্ত ত্বকে। এ ছাড়া মধু, অলিভ অয়েল আর লেবুর মিশ্রণও এ ধরনের ত্বক এক্সফোলিয়েট করে দারুণভাবে। বেকিং সোডার সঙ্গে সামান্য পানি মিশিয়ে তাও ব্যবহার করা যায়। ব্রণের দাগ দূর করবে এটা।

ময়েশ্চারাইজার: জোজোবা অয়েল কিংবা হেম্প সিড অয়েল অ্যাকনে আক্রান্ত যেকোনো ধরনের ত্বকে আর্দ্রতার জোগান দেবে। তৈলাক্ত ত্বকে অ্যালোভেরা আর টি ট্রি অয়েলের মিশ্রণ মাখা যেতে পারে। শুষ্ক ত্বকে আমন্ড অয়েল বেশি জুতসই।

ক্লিনজার: মধু আর অ্যালোভেরা জেল মিশিয়ে মুখে ম্যাসাজ করতে হবে ২ থেকে ৩ মিনিট। তারপর পরিষ্কার কাপড় দিয়ে মুছে নিতে হবে। অ্যাক্টিভেটেড চারকোলও মিশিয়ে নেয়া যেতে পারে অ্যালোভেরার সঙ্গে। বন্ধ লোমকূপ পরিষ্কার করবে এটি। দূষণ দূর করবে ভেতর থেকে। রুখবে ব্রণ।

টোনার: অ্যাপল সাইডার ভিনেগার ব্যবহার করা যেতে পারে টোনার হিসেবে। এ ছাড়া টি ট্রি অয়েলের সঙ্গে সামান্য শসার রস মিশিয়ে তাও ব্যবহার করা যেতে পারে।

ফেস মাস্ক: ডিমের সাদা অংশের সঙ্গে বেকিং সোডা আর মুলতানি মাটি মিশিয়ে ব্যবহার করা যেতে পারে। এ ছাড়া নিমের গুঁড়া আর গোলাপজলের মিশ্রণ দারুণ অ্যান্টি অ্যাকনে মাস্ক। হলুদ, দই আর মুলতানি মাটির মিশ্রণও ব্রণ সারাতে সাহায্য করে।

মডেল: অ্যানি

ছবি: ওমর ফারুক টিটু

Leave a Reply

Your email address will not be published.