কোনো এক নক্ষত্র পতিত রাতে

জিল্লুর রহমান প্রামানিক.-

বুকের ভেতর পাঁজর ভাঙ্গা এক নদী
সে নদীর দুর্বোধ্য গহনে জলশূন্য নিরন্ন রাতের আঁধার
রোজ রাতে চোখের চাতালে অনূঢ়া দোয়েল
শিস তুলে বিষণ্ণ বিজন বুকের বিধ্বস্ত নগরে।

রাতজাগা কুহেলি রাতের চিবুকে
বিমূর্ত চিত্রিণীর বিপন্ন দেহের নীল ছায়ায়
উন্নিদ্র জলের ফোঁটায় অনায়াস চিত্রার্পিত করে
বিনিদ্র স্বপ্নকে
গোধূলির নগ্ন চরণে ক্লান্ত দিবস ঘুমায়
দিনের শেষে ক্লান্তিহীন
নিপীড়িত সন্ধ্যার দীঘল কালো চুলে!
পুঁজিবাদের উচ্ছিষ্ট নগরে উঁচু উঁচু ‘প্যারামাউন্ট’ দালান
স্বপ্নহীন শৈশবহারা যুবকের ‘প্যারাল্যাক্স’ চোখ
নবোদিত যৌবনি নদীয়ার বসন্ত খুঁজে অনতিদূরে কোনো
এক ‘প্যারাডক্স’ বেলকনির অন্তঃস্থিত নির্যাতিত- সম্ভ্রান্ত
রুপোলী ঠোঁটের বিকম্পিত স্পন্দনে ।

যান্ত্রিক আলোয় বুকভরা বিভাবরী
ছায়ার সাথে ছায়া-অবিরাম পথচলা
কোনো এক উদাস পথিকের প্রেম-অপ্রেমের
ক্ষুধিত স্বপ্নগুলো ছেড়া নীল জিন্সের পকেটে ভরা
কবে-কখন গ্রাজুয়েট সনদ হাতে
জোড়াতালি সেন্ডেল-টিকটক শব্দ
পিচঢালা পথের বক্ষবিদীর্ণ বিদ্রুপ
নদিত হয় স্বেদজ আপ্লুত জলে
যুবকের ফেরারি চোখের কার্নিশ।

কোনো এক নক্ষত্র পতিত রাতে
ঘুম ভাঙ্গে নিশুতির ; আঁধারের কপোলে
স্বপ্ন দিয়ে জীবনের আল্পনা আঁকে
অভিমানী যুবক এই প্রেমহীন-স্বৈরাচারী নগরে
চোখ তাঁর স্বপ্নের হিমালয় ছুঁয়েছিলো কবে!
স্বপ্ন ভেঙ্গে গেলো সোনালি রোদের তপ্ত চিত্রপটে।

জিল্লুর রহমান প্রামানিক: কবি ও লেখক!প্রকাশিত বই সংখ্যা ৪ টি!

Leave a Reply

Your email address will not be published.