এ কে সরকার শাওন
 
আজো কেন বারে বারে
খুব জোরেশোরে
মনে পড়ে শুধু তারে;
যে গিয়েছে পিছু ফিরে
ধীরে ধীরে বহুদূরে
মহাকালের অন্তরালে গভীরে!
ঘষে ঘষে অন্তর জ্বলে পু্ড়ে
একাকী নিবিড়ে নিবিড়ে,
সকাল সাঁঝে নিরস দুপুরে
নিকষ কালো নিশীথের অন্ধকারে
অবসরে অনবসরে ঘুমের ঘোরে!
মন ছটফট করে
কিশোর বেলার মত করে
শুধু এক নজর তাঁকে দেখার তরে;
দূর থেকে এক পলকের তরে
কত ছল করে ঘুরে ফিরে
বাড়ীর পাশ দিয়ে চলি বারে বারে;
শুধু এক নজর দেখার তরে!
কান পেতে রই কান খাঁড়া করে
শুনিতে তাঁর কন্ঠস্বর বেড়ার ওপারে!
হি হি হাসি শুনলে পরে
তনুমনে ঝিলিক মারে!
যে কি অনুভুতি বাপ রে,
বোঝাই কেমন করে
সে যে চিত্ত বিকল করে!
তাঁর প্রিয় গান বারে বারে
গুনগুনিয়ে চলি বিড়বিড় করে;
কবিতাংশ আওড়াই মধুর স্বরে
দু’চোখ বন্ধ করে
ভেসে সুখের সাত সায়রে!
কিশোর অবেগ রেখেছি ধরে
অকারণে তা নিত্য পড়িছে ঝরে
অনাদরে অকাতরে!
পৌঢ়ের প্রান্ত ধরে
ভাব সমুদ্র টুইটুম্বরে
প্রেমরস টস টস করে
শুধু তাঁর তরে, তাঁরই তরে;
মন এমন কেন যে করে!
যৌবনের তাগড়া ঘোড়া টগবগ করে
ছুটে চলে তাঁর প্রান্তুিক প্রান্তরে।
শ্রাবণেও ফাগুন ভীড়ে;
শুধু তাঁরই তরে তাঁর তরে!
যে ইচ্ছে করে আমারে
জ্বেলে পুড়ে সব ভস্ম করে;
আবার নিজেই কাঁদে সুতীব্র চিৎকারে!
তাঁকে কথা মনে পড়ে
যেথায় যেমন থাকি সুরে অসুরে
ধরণীর কোন প্রান্তরে
তাঁর স্মৃতি ভীড় করে
পালাবার পথ নাই রে!
কবিতাঃ তাঁকে মনে পড়ে
কাব্যগ্রন্থঃ সজনী
এ কে সরকার শাওন
শাওনাজ, উত্তরখান, ঢাকা!
০৩ নভেম্বর ২০২১

Leave a Reply

Your email address will not be published.