গঙ্গাচড়ায় জাপা প্রার্থীর সমর্থকদের ওপর হামলার প্রতিবাদে বিক্ষোভ

রংপুরের গঙ্গাচড়া উপজেলার লক্ষ্মীটারী ইউনিয়ন নির্বাচনে জাতীয় পার্টির চেয়ারম্যান প্রার্থীর সমর্থকদের ওপর হামলার ঘটনায় সড়ক অবরোধ করে বিক্ষোভ করেছেন লাঙ্গল প্রতীকের সর্মথকরা।

বুধবার (২২ ডিসেম্বর) দুপুরে ইউনিয়নের মহিপুর স্কুল-সংলগ্ন এলাকায় এ হামলার ঘটনা ঘটে।

লাঙ্গল প্রতীকের সমর্থকদের দাবি, ওই এলাকায় গণসংযোগকালে তাদের ওপর হামলা চালিয়েছেন মোটরসাইকেল প্রতীকের সর্মথকরা। এ নিয়ে এলাকায় উত্তেজনা বিরাজ করছে। তবে হামলার ঘটনা অস্বীকার করেছেন মোটরসাইকেল প্রতীকের প্রার্থী।

স্থানীয়রা জানিয়েছেন, দুপুরে মহিপুর স্কুল-সংলগ্ন এলাকায় জাতীয় পার্টির প্রার্থীর ভাই মনজুম আলীর নেতৃত্বে লাঙ্গল প্রতীকের সমর্থকরা গণসংযোগ করতে যান। সেখানে স্বতন্ত্র চেয়ারম্যান প্রার্থী ওয়াহেদুজ্জামান মাবুর ছেলেসহ তার কর্মীরা বাধা দেন। এ নিয়ে বাগবিতণ্ডার এক পর্যায়ে লাঙ্গল প্রতীকের সমর্থকদের ওপর হামলা করেন মোটরসাইকেল প্রতীকের সমর্থকরা।

এ ঘটনার প্রতিবাদে সড়ক অবরোধ করে বিক্ষোভ করেছেন জাতীয় পার্টির প্রার্থীরা সমর্থকরা। এতে রংপুর-কাকিনা সড়ক যোগোযাগ প্রায় এক ঘণ্টা বন্ধ থাকার পর পুলিশ এসে তাদের সরিয়ে দেয়। বিকেল চারটার পর পরিস্থিতি স্বাভাবিক হয়। এদিকে ঘটনার পর থেকে এলাকায় টহল বাড়িয়েছে পুলিশ।

জাতীয় পার্টি সমর্থিত লাঙ্গল প্রতীকের প্রার্থী আব্দুল্লাহ্ আল হাদি অভিযোগ করেন, দুপুরে তার ভাই মনজুম আলীর নেতৃত্বে কর্মীরা মহিপুর স্কুল-সংলগ্ন এলাকায় গণসংযোগ করতে গেলে সেখানে মোটরসাইকেল প্রতীকের প্রার্থী ওয়াহেদুজ্জামান মাবুর ছেলেসহ তাদের কর্মী-সমর্থকেরা লাঙ্গল প্রতীকের অন্তত ১০ সমর্থককে পিটিয়ে আহত করেছেন। এ ঘটনায় থানায় একটি লিখিত অভিযোগ করেছেন বলে জানান তিনি।

তবে হামলার ঘটনা অস্বীকার করে মোটরসাইকেল প্রতীকের প্রার্থী ওয়াহেদুজ্জামান মাবু জানান, লাঙ্গল প্রতীকের প্রার্থীর সমর্থকরাই তার কর্মী-সমর্থকদের ওপর হামলা করেছে। নির্বাচনের শান্তিপূর্ণ পরিবেশ নষ্ট করতেই জাতীয় পার্টির প্রার্থী এমনটা করেছেন বলে তিনি অভিযোগ করেন।

গঙ্গাচড়া থানা পুলিশের ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) সুশান্ত কুমার জানান, খবর পেয়ে ঘটনাস্থলে পৌঁছে সমর্থকদের সড়ক থেকে সরিয়ে নেওয়া হয়। পরে তারা শান্তিপূর্ণ বিক্ষোভ করছে। তবে কেউ যাতে অপ্রীতিকর কোনো ঘটনা ঘটাতে না পারে, সে বিষয়ে পুলিশ সতর্ক অবস্থানে রয়েছে।

রংপুর জেলা সিনিয়র নির্বাচন কর্মকর্তা ফরহাদ হোসেন জানান, ঘটনাস্থলে আইনশৃঙখলা রক্ষাকারী বাহিনী উপস্থিত আছে। ঘটনার লিখিত অভিযোগ পেলে আমরা যথাযথ ব্যবস্থা নেব।

Leave a Reply

Your email address will not be published.