নিদ্রিতার নিঃসঙ্গতা

মুশফিক বরাত,
নিদ্রিতা পথ চলছে একাকী জনহীন রাস্তায়
হাঁটছে আপন মনে, কোমল শরীর দুলিয়ে
এগিয়ে কিছুটা টিউলিপের গন্ধ প্রত‍্যাশায়
শিরশীর্ষ উঁচু- পথ এলোমেলো
এদিক-সেদিক ছড়িয়ে রয়েছে বালুকণা।
একটা ফুলের বাগান, নির্জন নিঃসঙ্গতায় পূর্ণ
গন্ধ চেয়ে নিয়েছে সহসাই এক সাহসী যুবক।
চতুর কুকুরের দল পিছু নিয়েছে যেন
পথ আগলে ধরেছে বখাটেরা।
উষ্ণ পুরুষটির দীর্ঘ গ্রীবায় হাত রাখোনি যদিও
বুকের পাঁজরে ভুলোনি সাহসী যুবকটির বেদনাও
বলোনি- হেঁটেছি, নিঃসঙ্গ হেঁটেছি সঙ্গীহীন
এগিয়ে এসেছে শহুরে লাল শিয়ালের জুটি
এগিয়ে এসেছে জনৈক প্রৌঢ় বৃদ্ধ।
সাহসী মন নিয়ে কেঁপে উঠেছ কখনো
নিভৃত লোকালয়ে উদয় খুঁজেছ কখনো।
উদিত হয়েছে সূর্য
উদিত হয়েছে চন্দ্র
জানান দিয়ে গেছে কেঁপে কেঁপে ধ্রুবতারা।
গন্ধ শুঁকেছো রজনীগন্ধার
পরশ নিয়েছো রক্তজবার
ভেসেছ সুখস্বপ্নে সুখরামের-
এসেছে আরেকটি সুবর্ণ দিন।
নিঃসঙ্গতায় কাটছে কি আজকাল?
বেদনায় নীল হয়েছ কি দিনময়?
জেনেছ কি!
আমিও ঘুমাইনা আজকাল দুঃস্বপ্নের ঘোরে
চেয়ে থাকিনা দীর্ঘ প্রতীক্ষায়-
ভাবি নষ্ট আবেগে নিদ্রিতার কোমলতায়।
এমনি কোনো এক সকালে
ডেকে উঠব আচমকা- আমি তোমার সঙ্গী হব

Leave a Reply

Your email address will not be published.