এসপি ওসি এখন মাঠে গিয়ে কাজ করছে-লালমনিরহাট পুলিশ সুপার

আশির দশকে এসপি, ওসিকে মানুষ থানার বাইরে দেখতে পেতোনা, কিন্তু এখন পুলিশ অফিসাররাও মাঠে ময়দানে ঘুরে ঘুরে কাজ করে বলে মন্তব্য করেছেন লালমনিরহাটে পুলিশ সুপার আবিদা সুলতানা বিপিএম, পিপিএম।
সোমবার (১১ এপ্রিল) দুপুরে লালমনিরহাটের আদিতমারী থানায় ওপেন হাউজ ডে উপলক্ষে প্রধান অতিথির বক্তব্যে তিনি এ মন্তব্য করেন।
এক প্রশ্নের জবাবে তিনি বলেন, আশির দশক আর এখন এক নয়। আমি গ্রামের সন্তান তাই দেখেছি আশির দশকে গ্রামাঞ্চলে এসপি, ওসিকে কখনো মানুষ দেখতে পেতোনা। এমনকি পুলিশ যাতো মার্ডার বা বড় ঘটনা ঘটলে। তখন পুরো এলাকার লোক ছুটে যাইতো পুলিশ দেখতে। আর এখন প্রত্যেক ইউনিয়নে পুলিশ অফিসার থাকছেন। এসপি, ওসিরাও এখন গ্রামে গঞ্জে গিয়ে মাঠ পর্যায়ে মানুষজনের সাথে কথা বলেন। মতবিনিময় করে খোলামেলা কথা বলেন।
পুলিশ সুপার আবিদা বলেন, থানায় এসে মানুষ সেবা নিবে। কোনভাবেই হয়রানির শিকার যেন না হয় সেদিকে আমরা খেয়াল রাখছি। দ্রুত সময়ে যাতে সবাই পুলিশের সাহায্য পায় সেজন্য আমরা নির্দেশ দিয়ে রেখেছি। পুলিশ, জনগণ মিলেমিশে থেকে সমাজের আইনশৃঙ্খলা পরিস্থিতি স্বাভাবিক অটুট রাখতে হবে। শুধু পুলিশ চাইলেই হবেনা, আপনাদের সকলের সহযোগিতা প্রয়োজন। আমাদেরকে তথ্য দিবেন আমরা ব্যবস্থা নিবো। মাদকসহ সকল অপকর্ম রুখতে সকলের সহযোগিতা চাই।
তিনি আরও বলেন, মানুষের দোরগোড়ায় পুলিশী সেবা পৌঁছে দিতে বিট পুলিশিং চালু রয়েছে। প্রত্যেকটি ইউনিয়নে বিট অফিসার আছেন। যে কেউ চাইলেই সেই বিট অফিসারের সাথে তাৎক্ষণিক যোগাযোগ করে সেবা নিতে পারে। উপর মহলে জানানোর প্রয়োজন পরেনা। দ্রুত সময়ের মধ্যেই পুলিশের সেবা পাওয়া যায়।
এছাড়াও আসন্ন ঈদকে ঘিরে চুরি, ছিনতাই রোধ ও জানজট নিরসনে পুলিশের কার্যক্রম আরও বৃদ্ধি করার দিকে জোর দেওয়া হয়।
আদিতমারী থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মোক্তারুল ইসলামের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠানে আদিতমারী উপজেলা মুক্তিযোদ্ধা কমান্ডার বীর মুক্তিযোদ্ধা আব্দুল হামিদ মোল্লা, বীর মুক্তিযোদ্ধা আজিম মিয়া, আদিতমারী থানার ওসি তদন্ত মোজাম্মেল হক, ট্রাফিক ইন্সপেক্টর কাদের মিয়া, ভাদাই ইউনিয়নের চেয়ারম্যান কৃষ্ণ কান্ত বিদু, কমলাবাড়ী ইউনিয়নের চেয়ারম্যান মাহমুদ ওমর চিশতিসহ উপজেলার আট ইউনিয়নের ইউপি সদস্য, শিক্ষক, সমাজকর্মী, সামাজিক ও রাজনৈতিক নেতৃবৃন্দ,  ব্যাবসায়ী, কৃষক, মসজিদের ঈমাম, মন্দিরের পূজারি, অবসরপ্রাপ্ত চাকুরিজীবী সহ বিভিন্ন শ্রেণী পেশার লোকজন অংশ নেন।
এতে খোলামেলা আদিতমারী থানার সেবার বিষয়ে থানার বাসিন্দাদের মতামত তুলে ধরা হয়। তারা আদিতমারী থানার সার্বিক সেবার বিষয়ে সন্তুষ্টির কথা তুলে ধরে সীমাবদ্ধতা দূর করার আহবান জানান।
সেবার মান বাড়াতে বিভিন্ন সৃজনশীল পদক্ষেপ ও জনগণের ভোগান্তি যাতে লাঘব হয় সেদিকে খেয়াল রাখার আহবান জানান অংশ নেওয়া প্রতিনিধি গণ। এছাড়াও জনগণের সচেতনতার দিকেও জোর দেন বক্তারা।