বুড়িমারী স্থলবন্দর দিয়ে যাত্রী পারাপার শুরু

লালমনিরহাটের পাটগ্রাম উপজেলার বুড়িমারী স্থলবন্দর দিয়ে দীর্ঘ দুই বছর পর ভিসাধারী যাত্রীদের পারাপার শুরু হয়েছে।

বৃহস্পতিবার (১৪ এপ্রিল) বেলা ১১টায় স্থলবন্দরের অভিবাসন পুলিশের উপ-পরিদর্শক (এসআই) মো. আনোয়ার হোসে বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন।

তিনি বলেন, বুধবার দুপুর সাড়ে ১২টা থেকে বৃহস্পতিবার বেলা ১১টা পর্যন্ত উভয়দেশের ৪০ জন পাসপোর্টধারী যাত্রী বুড়িমারী স্থলবন্দরের চেকপোস্ট ব্যবহার করেছেন।

এসআই আরও বলেন, পুলিশের অভিবাসন চৌকি দিয়ে পাসপোর্টধারী যাত্রীদের যাতায়াতে সম্মত হয়েছে দুদেশ। এখন থেকে প্রতিদিন সকাল ৯টা থেকে ৫টা পর্যন্ত দুদেশের যাত্রী যাতায়াত করতে পারবেন।

খোঁজ নিয়ে জানা গেছে, করোনাভাইরাসের কারণে প্রায় দুই বছর ভ্রমণ ভিসাধারীদের এ পুলিশ অভিবাসন চৌকি দিয়ে যাতায়াত বন্ধ ছিল। এতে রংপুর, লালমনিরহাট, নীলফামারী, কুড়িগ্রামের পাসপোর্টধারী যাত্রীদের ভারতে প্রবেশ কষ্টকর ছিল।

বুধবার দুপুর ১২টার দিকে ভারতের চ্যাংড়াবান্ধা স্থলবন্দরের অভিবাসন পুলিশের উপ-পরিদর্শক (এসআই) সমীর শামাং ভিসাধারীরা যাতায়াত করতে পারবেন বলে জানান। এরপর বুড়িমারী স্থলবন্দরের অভিবাসন পুলিশের সম্মতিতে যাত্রী পারাপার শুরু হয়।

এদিকে বুড়িমারী স্থলবন্দরের অভিবাসন চৌকি খুলে দেওয়ার খবর পেয়ে স্বস্তি মিলেছে ভ্রমণ ও ভারতে চিকিৎসা নেওয়া রোগীদের।

পাটগ্রাম পৌর এলাকার আলমগীর হোসেন বলেন, ‘চেকপোস্ট বন্ধ থাকায় ভারতে চিকিৎসা নিতে পারছিলাম না। দীর্ঘদিন ধরে রোগে ভুগছি। চেকপোস্ট খুলে দেওয়ায় ভারতে গিয়ে চিকিৎসা সেবা নিতে পারবো।’

স্থলবন্দরের ব্যবসায়ী রাশেদ হোসেন বলেন, ‘সব ভিসাধারীদের যাতায়াতের পথ খুলে দেওয়ায় এ স্থলবন্দরটির প্রাণচাঞ্চল্যতা ফিরে পেয়েছে।’